ব্রেকিং:
স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের ছবি ব্যবহার করে ফেসবুকে প্রতারণা উৎপাদন বৃদ্ধিতে একযোগে কাজ করার অঙ্গীকার করোনাকালে চূড়ান্ত এমপিওভুক্তির সুখবর পেল ১৬৩৩ স্কুল-কলেজ করোনা মোকাবেলায় বঙ্গবন্ধুর স্বাস্থ্যসেবা দর্শন বৈশ্বিক ক্রয়াদেশ পূরণে সক্ষম বাংলাদেশ ॥ শেখ হাসিনা মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছে মানুষ, দৃষ্টান্ত স্থাপন করে চলেছে করোনা পরীক্ষা হবে চার বেসরকারি হাসপাতালে ২০ হাজারের বেশি আইসোলেশন শয্যা প্রস্তুত রয়েছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী করোনা আক্রান্তের শরীরের অক্সিজেনের পরিমাণ ঘরেই পরীক্ষার উপায় দেশে ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড সংখ্যক আক্রান্ত, আরো ৮ মৃত্যু করোনা মোকাবিলায় বাংলাদেশের প্রশংসা করলেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী দেশে ৫৪৯ নতুন করোনা রোগী শনাক্ত, আরো ৩ মৃত্যু হাসপাতাল থেকে পালানো করোনা রোগীকে বাগান থেকে উদ্ধার চাঁদপুরে ২০০০ পরিবারের মাঝে ইফতার সামগ্রী বিতরণ চীনের ৪ বিশেষজ্ঞ ঢাকায় আসছেন ভেন্টিলেটর-সিসিইউ স্থাপনে ১৪শ` কোটি টাকার জরুরি প্রকল্প নির্দেশনা না মানায় গণস্বাস্থ্যের কিট গ্রহণ করিনি বাংলাদেশে ১৯ মের মধ্যে করোনা বিদায় নেবে ৯৭ শতাংশ চাকরির বয়স শিথিলের বিষয় ভাবছে সরকার মানসম্মত কোন ধাপ অতিক্রম করেনি গণস্বাস্থ্যের কিট
  • সোমবার   ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০ ||

  • আশ্বিন ৬ ১৪২৭

  • || ০২ সফর ১৪৪২

সর্বশেষ:
একবছরে পাঁচগুণ মুনাফা বেড়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের আমাজন বাঁচাতে লিওনার্দোর ৫০ মিলিয়ন ডলারের অনুদান ১৬২৬৩ ডায়াল করলেই মেসেজে প্রেসক্রিপশন পাঠাচ্ছেন ডাক্তার জোরশোরে চলছে রূপপুর পারমাণবিক প্রকল্পের কাজ
১৭৭

ঘুষ নিয়ে ফেঁসে গেছেন তিনি

দৈনিক চাঁদপুর

প্রকাশিত: ১৭ মার্চ ২০২০  

রাজশাহী সদর সাবরেজিস্ট্রার জেলা আওয়ামী লীগের এক নেতার কাছ থেকে ঘুষ নিয়ে আর কার্যালয়ে ফিরতে পারছেন না। প্রায় সাড়ে তিন মাস ধরে তিনি তাঁর কার্যালয়ে অনুপস্থিত রয়েছেন। তাঁকে দুবার কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে। প্রথমটির উত্তর দিলেও দ্বিতীয়টির আর জবাব দেননি। ফোন বন্ধ করে রেখেছেন।

এই সাবরেজিস্ট্রারের নাম জামিনুল হক। তিনি রাজশাহী সদর সাবরেজিস্ট্রারের কার্যালয়ে কর্মরত। তাঁর অনুপস্থিতির কারণে তাঁর কাছে থাকা শতাধিক বালাম বহি আটকে আছে স্বাক্ষরের জন্য। এ ছাড়া ৩২৮টি দলিলও পড়ে আছে তাঁর দপ্তরে। সার্টিফায়েড কপি না পেয়ে চরম ভোগান্তির মুখে পড়েছেন জমির ক্রেতারা। তবে তাঁর জায়গায় অন্য একজন কর্মকর্তাকে দিয়ে এখন কাজ করাচ্ছেন জেলা রেজিস্ট্রার।

সাবরেজিস্ট্রার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, গত বছরের ২৭ নভেম্বর রাজশাহী জেলার এক আওয়ামী লীগ নেতার চারটি দলিল সম্পাদনের সময় বেকায়দায় ফেলে ৪০ হাজার টাকা ঘুষ নেন সাবরেজিস্ট্রার জামিনুল হক। ঘুষ লেনদেনের বিষয়টি জানাজানি হলে পরদিনই তিনি অসুস্থতার দরখাস্ত দিয়ে চলে যান।

যোগাযোগ করা হলে নাম প্রকাশ না করার শর্তে ওই আওয়ামী লীগ নেতা প্রথম আলোকে বলেন, সাবরেজিস্ট্রার বেলা তিনটার পরে আর কোনো দলিল করেন না, এটা তাঁর জানা ছিল না। কিন্তু ব্যাংকের কাজ করতে গিয়ে তাঁর তিনটা বেজে যায়। তখন সাবরেজিস্ট্রার আর দলিলে সই করতে রাজি হননি। বিষয়টি দুদককে জানানো হয়। তখন দুদক কার্যালয় থেকে ফোন করা হলেও সাবরেজিস্ট্রার পাত্তা দেননি। একপর্যায়ে তাঁর দালালের মাধ্যমে রাজশাহী পর্যটন মোটেলে গিয়ে দলিলে সই করতে রাজি হন। এ জন্য দালাল তাঁর কাছ থেকে ৪০ টাকা ঘুষ দাবি করেন। সেদিন দলিল না হলে তাঁর বহু টাকার ক্ষতি হবে। দুই ব্যাংকের কর্মকর্তারা তাঁর এই দলিলের সঙ্গে জড়িত ছিলেন। দলিল না হলে তাঁদের একজনের চাকরি চলে যাওয়ার অবস্থা। বাধ্য হয়ে তিনি সেভাবেই দলিল করতে রাজি হন, কিন্তু টাকা লেনদেন করেন অন্য জায়গায়। সেখানে সিসি ক্যামেরা ছিল। সেই ক্যামেরায় ঘুষের টাকা লেনদেনের বিষয়টি ধরা পড়ে। যেহেতু সাবরেজিস্ট্রার দুদককে পাত্তা দেননি। এ জন্য দুদকও তাঁর দুর্নীতির অনুসন্ধানে নেমেছে। তারা প্রমাণপত্র জোগাড় করেছে।

৫ মার্চ দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের একটি দল সাবরেজিস্ট্রার জামিনুলের কার্যালয়ে হানা দেয়। কিন্তু জামিনুল অফিসে ছিলেন না। সেদিন দুদকের পক্ষ থেকে জানানো হয়, গত বছরের ২৮ নভেম্বর থেকে জামিনুল অফিসে আসেননি। সেদিন অসুস্থতার অজুহাত দেখিয়ে দরখাস্ত দিয়ে গেছেন তিনি।

দুদক সূত্র জানায়, জামিনুল প্রতিদিন চার থেকে সাড়ে পাঁচ হাজার টাকা ভাড়া দিয়ে রাজশাহী পর্যটন মোটেলে ভিআইপি লাউঞ্জে অবস্থান করেন। বিমানে ঢাকায় যাতায়াত করেন। তিনি পর্যটন মোটেলেই কমিশনে দলিল সম্পাদন করতেন। আর পকেটে পুরতেন ঘুষের টাকা।

সারেজিস্ট্রারের কার্যালয়ে একাধিক সূত্র জানায়, জামিনুল এর আগে ঢাকার ধানমন্ডির সাবরেজিস্ট্রার ছিলেন। তার আগে ছিলেন গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলায়। সেসব এলাকাতেও তাঁর বিরুদ্ধে ঘুষ–বাণিজ্যের অভিযোগ ওঠে। এ কারণে তাঁকে বারবার বদলি করা হয়।

সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা জানিয়েছেন, দুদকের হাতে গ্রেপ্তার হওয়ার ভয়ে সাবরেজিস্ট্রার জামিনুল অফিসে আসছেন না। এ বিষয়ে জেলা রেজিস্ট্রার ইলিয়াস হোসাইন বলেন, ১১ মাস ছুটির পর তিনি (জামিনুল) রাজশাহীতে এসে যোগদান করেছিলেন। দুই সপ্তাহের ছুটির দরখাস্ত দিয়ে সাড়ে তিন মাস ধরেই তিনি অনুপস্থিত। প্রথমবার কারণ দর্শানো নোটিশ দেওয়া হলে তিনি জবাবে জানিয়েছিলেন, ভয়ভীতি দেখানোর কারণে তিনি রাজশাহীতে ফিরতে পারছেন না। দ্বিতীয়বার নোটিশ দেওয়া হলে তিনি জবাব দেননি। ফোন বন্ধ করে রেখেছেন।

জেলা রেজিস্ট্রার জানান, জামিনুলের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য তিনি আগামী সপ্তাহে আইজিআর (ইন্সপেক্টর জেনারেল অব রেজিস্ট্রেশন) বরাবর সুপারিশ করবেন।

দুদকের সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের উপপরিচালক জাহাঙ্গীর আলম বলেন, পলাতক সাবরেজিস্ট্রার জামিনুলের বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট কিছু অভিযোগ রয়েছে। প্রাথমিক অনুসন্ধানের অনুমতির জন্য কাল বুধবার কমিশনে লিখবেন।

দৈনিক চাঁদপুর
দৈনিক চাঁদপুর
অপরাধ বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর