ব্রেকিং:
চাঁদপুরে স্কুল শিক্ষিকা হত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন ইসলাম কখনো সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও নারী নির্যাতনকে সমর্থন করে না জাপানের উচ্চকক্ষে শিনজো আবে’র জয় প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে তড়িঘড়ি ব্যবস্থা নয়: ওবায়দুল কাদের ছেলেধরা সন্দেহ হলে গণপিটুনি নয়, ৯৯৯ নম্বরে কল করুন ক্ষুধামুক্ত বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে কাজ করছে সরকার: স্পিকার গত অর্থবছরে প্রায় শতভাগ প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছে মন্ত্রণালয় ছেলেধরা গুজব বন্ধে সারাদেশে পুলিশের বার্তা ‘রাস্তায় পশুর হাট বসতে দেয়া হবে না’ সরকারি ব্যাংকে খেলাপি ঋণ কমেছে: অর্থমন্ত্রী হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ থেকে প্রিয়া সাহাকে বহিষ্কার বন্ধুর প্রেমিকাকে চিঠি দিতে গিয়ে ছেলেধরা সন্দেহে গণপিটুনি শিকার গুগলের নতুন চমক ‘পিক্সেল ৪’ যানজট নিরসনে মাস্টারপ্ল্যান তৈরির নির্দেশ গাইবান্ধার পাঁচ রাজাকারের রায় যেকোনো দিন কয়লা চুরি: বড়পুকুরিয়ার সাত এমডিসহ ২৩ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট চাঁদপুরে ট্রাফিক পুলিশের অভিযানে ১১ সিএনজি অটোরিক্সা জব্দ কমিউনিটি পুলিশ চট্টগ্রাম রেঞ্জের প্রথম স্থানে চাঁদপুরের রব দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ বৃদ্ধি পেয়েছে: শিল্প প্রতিমন্ত্রী ‘এরশাদের আসনে আওয়ামী লীগ অংশ নেবে’

বুধবার   ২৪ জুলাই ২০১৯   শ্রাবণ ৮ ১৪২৬   ২১ জ্বিলকদ ১৪৪০

দৈনিক চাঁদপুর
সর্বশেষ:
প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে তড়িঘড়ি ব্যবস্থা নয়: ওবায়দুল কাদের জাপানের উচ্চকক্ষে শিনজো আবে’র জয় রোহিঙ্গা সংকটে আসিয়ানভুক্ত দেশগুলোকে ভূমিকা রাখার আহ্বান জমি চাষ করতে গেলেন কৃষক, পেলেন ৬০ লাখ টাকার হিরা! ঈদুল আজহায় ৫ স্থানে পাওয়া যাবে রেলের অগ্রিম টিকিট
১২৩৮

ডিম যুদ্ধের পক্ষে অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত: ১৮ মার্চ ২০১৯  

ডিম নিক্ষেপকারী বালককে চড়-থাপ্পর দেয়া মুসলিম বিদ্বেষী সিনেটরকে অভিযুক্ত করা উচিত বলে মনে করেন অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন।

নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চ মসজিদে হামলার বিষয়ে সিনেটর ফ্রেজার অ্যানিং মুসলিমবিদ্বেষী মন্তব্য করায় তার মাথায় ডিম ভাঙেন উইল কনোলি নামের এক তরুণ।

এ ঘটনার ভিডিও ছড়িয়ে পরায় ১৭ বছর বয়সী তরুণ কনোলি অনলাইন হিরো হিসেবে আলোচনায় আসে বিশ্বজুড়ে। রোববার এক অনুষ্ঠানে ওই তরুণের পক্ষ নিয়ে সাংবাদিকদের প্রধানমন্ত্রী মরিসন বলেন,ফ্রেজার অ্যানিংয়ের বিরুদ্ধে সবধরনের আইনী ব্যবস্থা নেয়া উচিত।

নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে দুই মসজিদে সন্ত্রাসী হামলার বিষয়ে মন্তব্য করতে গিয়ে বেশ বিপাকে পড়েন অস্ট্রেলীয় সিনেটর ফ্র্যাসার অ্যানিং। তার মন্তব্য প্রকাশের দিনই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নিন্দার ঝড় উঠে। তাতেই শান্ত হয়নি পরিস্থিতি। বরং ঘটনার পরদিন মেলবোর্নে এক সাক্ষাৎকারে কথা বলতে গিয়ে তিনি শিকার হন ‘ডিম হামলার’। সেই হামলাকে ডিম যুদ্ধ বলে আখ্যায়িত করেছে অস্ট্রেলিয়ায়।

ভিডিওচিত্রের মাধ্যমে বিশ্ববাসী দেখেছেন কীভাবে সেই সিনেটরের মাথায় ডিম ফাটিয়েছেন ওই কিশোর। আরো দেখা গেছে, সেই কিশোরের প্রতি সিনেটর অ্যানিংয়ের আক্রোশের দৃশ্যও। উপরন্তু, সিনেটরের নিরাপত্তায় নিয়োজিত ব্যক্তিরা হামলে পড়েন কিশোরের ওপর। সেসব দৃশ্য দেখে আরো বিপাকে পড়েন অস্ট্রেলীয় রাজনীতিক।

নিউজিল্যান্ডের সংবাদমাধ্যম নিউজিল্যান্ড হেরাল্ড রোববার এক প্রতিবেদনে জানায়, ১৭ বছরের এক কিশোরের ওপর হামলা ও তাকে নোংরা কথা বলার জন্যে সিনেটর ফ্র্যাসার অ্যানিংয়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়েরের দাবি তুলছে অস্ট্রেলিয়ার জনগণ।

এতে আরো বলা হয়- চার্জডটঅর্গের মাধ্যমে অন্তত ৫ লাখ ব্যক্তি আবেদন করেছেন সেই রাজনীতিবিদকে পার্লামেন্ট থেকে বহিষ্কারের। একই সঙ্গে সেই কিশোরকে দেয়া হচ্ছে ‘বীরের’ সম্মান। ওই কিশোরের ওপর সিনেটর ও তার লোকদের আক্রমণকে ‘নিষ্ঠুর’ বলে অভিহিত করেছেন অনেকেই।

অস্ট্রেলিয়ার একজন সিনেটর ডেরিন হিঞ্চ এক টুইটার বার্তায় লিখেছেন, সিনেটর অ্যানিংয়ের প্রতিক্রিয়া জানিয়েছিলে তার প্রবৃত্তিগতভাবে। কিন্তু, তার গুণ্ডাদের প্রতিক্রিয়া ছিল মাত্রাতিরিক্ত।

পুলিশের এক বিবৃতিতে বলা হয়ছে, অনলাইনে নিজেকে ‘এগ বয়’ (ডিম বালক) পরিচয়দানকারী ওই তরুণ সিনেটরের মাথায় ডিম নিক্ষেপের পর সিনেটর তাকে চর-থাপ্পড় দেন। পরবর্তীতে সিনেটরের অনুসারীরা বালকটিকে ধরে ফেলেন।

এদিকে, একটি তহবিল সংগ্রহকারী সংস্থা কিশোরের পক্ষে আইনি লড়াই এবং আরো ডিম কেনার জন্যে অর্থ সংগ্রহ করতে শুরু করেছে। গত ১৭ ঘণ্টায় ‘গোফান্ডমি’ প্রচারণার মাধ্যমে সংস্থাটি ২ হাজার মার্কিন ডলার সংগ্রহ করতে গিয়ে ১৪ হাজার মার্কিন ডলার হাতে পেয়েছে। অর্থদানকারীরা ছেলেটির সাহসিকতার জন্যে উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করেছেন। সিনেটর অ্যানিংকে উদ্দেশ্য করে কেউ কেউ বলেছেন, তরুণ প্রজন্ম লড়াই চালিয়ে যাবে।

অস্ট্রেলিয়ার সব রাজনৈতিক দল, মূলস্রোতের গণমাধ্যমের পাশাপাশি দেশটির প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসনও সিনেটর অ্যানিংয়ের তীব্র সমালোচনা করেছেন।

এদিকে, সিনেটর অ্যানিংয়ের একজন মিডিয়া উপদেষ্টা গতকাল সংবাদমাধ্যম নিউজডটকমডটএইউ-কে বলেন, সিনেটরের মন্তব্য নিয়ে কোনো নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া হয়নি, শুধু সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কিছু সময় হইচই হয়েছে মাত্র। ক্রাইস্টচার্চ হামলার পেছনে মুসলিম অভিবাসনকে দায়ী করে প্রশ্ন রাখেন সিনেটর অ্যানিং। তিনি বলেন, মুসলিম অভিবাসন ও সহিংসতা যে অঙ্গাঙ্গি জড়িত, ক্রাইস্টচার্চ হামলার পরও কি কেউ তা অস্বীকার করতে পারবে?

দৈনিক চাঁদপুর
দৈনিক চাঁদপুর
এই বিভাগের আরো খবর