ব্রেকিং:
চাঁদপুরে সবচেয়ে বেশি পেঁয়াজের উৎপাদনের সম্ভাবনা নবজাতককে হাসপাতালে রেখে পালালো মা মোলহেডে বাংলা উইকিপিডিয়ার মিটআপ সম্পন্ন চাঁদপুরে চলতি মৌসুমে ধনেপাতা উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ১২শ মে.টন চাঁদপুর আওয়ামী লীগের কার্যকরী কাউন্সিল কমিটির সভা অনুষ্ঠিত মুজিববর্ষ উদ্‌যাপনে চাঁদপুরে বছরব্যাপী কর্মসূচি গ্রহণ শিক্ষামন্ত্রীর জন্মদিন উপলক্ষে মিলাদ ও দোয়া অনুষ্ঠিত হাইমচর উপজেলা নির্বাচন ইভিএম পদ্ধতিতে হবে চাঁদপুর মুক্ত দিবস পালিত ২৫৭ টাকা নিয়ে ঢাকায় আসা সেই ছেলেটি আজ শ্রেষ্ঠ অভিনেতা পাঁচ নারী পাচ্ছেন বেগম রোকেয়া পদক গণপরিবহনে মেয়েদের একা ভ্রমণে পুলিশের পরামর্শ ঢাবি’র ৫২তম সমাবর্তন আজ দুই বছরের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার প্রদান করলেন প্রধানমন্ত্রী জমকালো আয়োজনে শেষ হলো বিপিএলের উদ্বোধন যানজট কমাতে ইচলী লঞ্চঘাট চালু করা হবে মতলবে শীতার্তদের জন্য স্থানীয় সংসদের মহৎ উদ্যোগ বর্তমান সরকার কৃষকদের বিনামূল্যে সার ও বীজ বিতরণ করে বিএনপি আসলে তুমি কার ? মতলবে সাড়ে ৬ টন গম নিয়ে ট্রাকসহ আটক ২

সোমবার   ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ২৫ ১৪২৬   ১১ রবিউস সানি ১৪৪১

দৈনিক চাঁদপুর
সর্বশেষ:
একবছরে পাঁচগুণ মুনাফা বেড়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের আমাজন বাঁচাতে লিওনার্দোর ৫০ মিলিয়ন ডলারের অনুদান ১৬২৬৩ ডায়াল করলেই মেসেজে প্রেসক্রিপশন পাঠাচ্ছেন ডাক্তার জোরশোরে চলছে রূপপুর পারমাণবিক প্রকল্পের কাজ
১২৮

ডেঙ্গুতে মারা গেল ৮ বছরের মদিনা

প্রকাশিত: ৭ আগস্ট ২০১৯  

মাকে এডিস মশা থেকে সতর্ক থাকতে বলা মেয়েটি ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে। রাত ১২টার দিকে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে মদিনা আক্তার (৮) নামে শিশু মেয়েটি মৃত্যুর কোলে ঢলে পরে। 

মদিনার বাড়ি চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলার ছেংগারচর পৌরসভার ছোট ঝিনাইয়া গ্রামে। মদিনার মৃত্যুতে তার বাড়িতে চলছে শোকের মাতম।

স্থানীয় অক্সফোর্ড কিন্ডারগার্টেনে কেজি ওয়ানে পড়ুয়া শিশু মদিনা ডেঙ্গু আতঙ্কের কথা তার মা ও ভাইয়ের কাছে বলতো। কে জানতো সেই ডেঙ্গুতেই তার মৃত্যু হবে। মদিনার বাবা মিজান ঢালী প্রবাসে থাকেন।

স্থানীয় সূত্র জানায়, ঝিনাইয়া গ্রামের নিজ বাড়িতে মশার কামড় দেয়ার বিষয়টি মদিনা প্রথমে তার মাকে জানায়। মদিনা তার মাকে বলেছিল, মা আমাকে ডেঙ্গু মশা কামড় দিয়েছে, তুমি সাবধানে থেকো। মা প্রথমে বিষয়টি গুরুত্ব না দিলেও পরের দিন স্থানীয় ছেংগারচর বাজারের একটি ডায়াগনস্টিক সেন্টারে পরীক্ষা করালে ডেঙ্গু ধরা পড়ে মদিনার।

পরে দ্রুত তাকে মতলব উত্তর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয়। সেখান থেকে তাকে চাঁদপুর সদর হাসপাতালে নেয়ার পরামর্শ দেন চিকিৎসকরা। পরে তাকে চাঁদপুর থেকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়ে দেয়া হয়।
ঢাকা মেডিকেলে চিকিৎসা চলাকালীন আইসিইউতে নেয়ার পরামর্শ দেয়া হলে, সিট না পাওয়ায় বেশ কয়েকটি হাসপাতাল ঘুরে, অবশেষে তাকে ধানমন্ডির একটি প্রাইভেট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। রাত ১২টার দিকে ওই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় মদিনা।

কাঁদতে কাঁদতে মদিনার মা ময়না আক্তার বলেন, ডেঙ্গু আতঙ্কের কথা মেয়ে আমাকে প্রায়ই বলতো। স্কুলের শিক্ষকরা নাকি ডেঙ্গুর বিষয়ে তাদেরকে সতর্ক থাকতে বলতো। বাড়ি ফিরে বাড়ির আশপাশ পরিষ্কার রাখতে বলতো মদিনা। আমাকে সাবধানে থাকতে বলে ডেঙ্গুই মারা গেল মেয়ে। তিনি আরো বলেন, আমরা ঢাকা কিংবা অন্য কোথাও যাইনি। মদিনা বাড়িতেই ছিল। বাড়িতেই ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছে মদিনা।

পঞ্চম শ্রেণিতে পড়ুয়া মদিনার ভাই মেহরাজ জানায়, আমার বোন লেখাপড়ায় ভালো এবং খুবই সচেতন ছিল। বাড়ির আশপাশ পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখা এবং কোন কিছুর মধ্যে পানি জমে না থাকার বিষয়ে আমাদের সচেতন করতো। সে বলতো এসব স্কুল থেকে শিখেছে। কিন্তু আমাদের সতর্ক করে না ফেরার দেশে চলে গেল মদিনা।

দৈনিক চাঁদপুর
দৈনিক চাঁদপুর
এই বিভাগের আরো খবর