ব্রেকিং:
শনিবার শ্রীলঙ্কা যাচ্ছে ১০ জনের বাংলাদেশ দল কৃষকের কাছ থেকে ধান কিনতে নীতিমালা হচ্ছে: কৃষিমন্ত্রী আওয়ামী লীগ আগের চেয়ে বেশি ঐক্যবদ্ধ: হানিফ রিফাত হত্যাকাণ্ডে মিন্নি জড়িত: তদন্ত কর্মকর্তা চালু হলো এনআইডি যাচাইয়ের গেটওয়ে ‘পরিচয়’ বাংলাদেশে খাদ্য-নিরাপত্তা বেড়েছে লন্ডন যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী ইবোলা সংক্রমণ: ‘বৈশ্বিক জরুরি অবস্থা’ ঘোষণা সর্বোচ্চ আত্মত্যাগের বিনিময়ে দায়িত্ব পালনের আহ্বান পুরান ঢাকায় ভবন ধস: বাবা-ছেলের মৃতদেহ উদ্ধার ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়া প্রতিরোধে করণীয় কোচিং-নোটবই বন্ধ করতে ডিসিদের নির্দেশনা দিলেন শিক্ষামন্ত্রী গুজব থেকে নিজেদের নিরাপদ রাখতে হবে সেনাবাহিনী-বিজিবির চেষ্টায় বান্দরবানের সঙ্গে যোগাযোগ স্বাভাবিক ‘সব আদালতে নিরাপত্তা বাড়ানো হবে’ কাদেরের স্বাস্থ্য পরীক্ষা সম্পন্ন, চিকিৎসকের সন্তোষ প্রকাশ কোরবানির ঈদ পর্যন্ত বিদেশি গরু প্রবেশ নিষিদ্ধ আজ এনআইডি যাচাইয়ে ‘পরিচয়’ উদ্বোধন করবেন জয় বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটে বাণিজ্যিকভাবে সম্প্রচার চালাবে বিটিভি যেভাবে পাবেন এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফলাফল

বৃহস্পতিবার   ১৮ জুলাই ২০১৯   শ্রাবণ ২ ১৪২৬   ১৫ জ্বিলকদ ১৪৪০

দৈনিক চাঁদপুর
সর্বশেষ:
পদ্মা সেতু নিয়ে গুজবে গ্রেফতার ১ জন অপপ্রচারই বিএনপির পুঁজি: ওবায়দুল কাদের ‘মুক্তিযোদ্ধাদের মাসিক ভাতা হবে ১৫ হাজার টাকা’ জেলা প্রশাসক সম্মেলন ১৪ জুলাই বাংলাদেশের আর্থিক অন্তর্ভুক্তির প্রশংসায় রানী ম্যাক্সিমা নতুন দুই মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীর শপথ ১৩ জুলাই
৩৫

পৃথিবীর সুন্দরতম নীল মসজিদ

প্রকাশিত: ১৪ মে ২০১৯  

সুলতান আহমেদ মসজিদ ইস্তানবুলের একটি ঐতিহাসিক মসজিদ যেটি ব্লু মসজিদ নামে পরিচিত। মসজিদটির ভেতরের দেয়াল নীল রং এর টাইলস দিয়ে সুসজ্জিত বলে এই মসজিদটি ব্লু মস্ক বা নীল মসজিদ নামে পরিচিত। মসজিদটি ১৬০৯ থেকে ১৬১৬ সালের মধ্যে উসমানীয় সাম্রাজ্যের সুলতান আহমেদ বখতি নির্মাণ করেন।
মসজিদের মুসল্লি ধারণ ক্ষমতা ১০ হাজার। দৈর্ঘ্য ২৪০ ফুট, প্রস্থ ২১৩ ফুট, প্রধান গম্বুজের উচ্চতা ১৪১ ফুট। মিনারের উচ্চতা ২১০ ফুট।

এ ছাড়া দিনের বেলায় শত শত রঙিন কাচের জানালা আর রাতে মসজিদের প্রধান পাঁচটি গম্বুজসহ মোট ১৩টি গম্বুজ ও ছয়টি মিনার থেকে নীল আলোর বিচ্ছুরণে তৈরি হয় মোহময় পরিবেশ।
 
১৬০৯ থেকে ১৬১৬ সালের মধ্যে প্রথম আহমেদের শাসনামলে মসজিদটির নির্মাণ হয়। ৪০০ বছর পরও তুরস্কের ব্লু  মসজিদ আজো পৃথিবীর সুন্দর মসজিদের স্থানে গৌরবের সঙ্গে দাড়িঁয়ে আছে। 

মসজিদটির ঐহিহাসিক গুরুত্ব, ধাপে ধাপে (কাসকেডিং) সাজানো গম্বুজ, ছয়টি মিনার, বিশাল সাহান, উচ্চ মূল্যবান সিলিং, অনেক দূর থেকেও দৃশ্যমান হওয়া, গাছাগাছালি ঘেরা এর চারপাশের বিশাল খোলামেলা পরিবেশ, পার্র্ক সাজানো সড়ক, বাড়িঘর, নীল জলাধাররের ফোয়ারা, মসজিদের অভ্যন্তরীণ হাতের কাজ সব মিলিয়ে ইংরেজিতে প্লেস অব ম্যাজিক অ্যান্ড ওয়ান্ডার হিসেবে পরিচিত এ মসজিদ। 

বাইজানটাইন শাসকদের প্রাসাদের পাশে হাজিয়া সোফিয়া মসজিদের সামনে অবস্থিত ব্লু  মসজিদ। এক সময় এলাকাটি বাইজানটাইন শাসকদের রাজপ্রাসাদ ছিল। 
 
দেয়াল, গম্বুজ, সিলিং, খুঁটির বাহারি কারুকাজ, মোহনীয় রঙের ব্যবহার, মসজিদের বিশালত্ব, পুরনো দিনের বিশালকায় দেয়াল, সাহানের মাঝে ঝর্ণা, রঙিন কাচের ২০০ জানালা, মসজিদের উপরিভাগে হাতে করা কারুকাজের ২০ হাজার সিরামিক টাইলস, কুরআনের আয়াতের ক্যালিগ্রাফি, স্থাপত্য বৈশিষ্ট্য, প্রভৃতি যেমন এ মসজিদের সৌন্দর্যের উৎস তেমনি একে বিশেষত্ব দান করেছে এর বাইরের পরিবেশ। মারমারা সাগরের নীল জলরাশির পাশে এর অবস্থানও মসজিদটির ব্লু  বা নীল নামের সার্থকতা বহন করছে। 

দীর্ঘকাল ধরে তুরস্কের অন্যতম পর্যটন কেন্দ্রে পরিণত হয়েছে এ মসজিদ। মুসলমান ছাড়াও বিভিন্ন ধর্মের হাজার হাজার লোকজন প্রতিদিন এ মসজিদ দেখতে আসেন। তুরস্কে সফরে গিয়ে এ মসজিদ না দেখে ফিরেছেন এমন লোক সম্ভবত খুব কম। 

দৈনিক চাঁদপুর
দৈনিক চাঁদপুর