ব্রেকিং:
ফরিদগঞ্জে নতুন প্রজন্মকে বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে সঠিক ধারণা বলাখালে স্ট্যান্ডকেন্দ্রিক চাঁদা ও শিক্ষার্থী হয়রানি চাঁদপুরে শিক্ষকদের ১১তম ও ১০তম গ্রেডের দাবি কচুয়ায় ঘরে ঘরে `তথ্য আপা` সেবা পৌঁছে দিচ্ছে মতলবে চাষীদের শীতকালীন সবজি চাষে আগ্রহ চাঁদপুর ও কুমিল্লায় র‌্যাবের অভিযানে মাদক সম্রাট আটক চাঁদপুর সদর উপজেলার রাজরাজেশ্বরে ফের ভাঙন ইচ্ছাকৃত ২০০ বিষধর সাপের কামড় খেয়েছেন এই ব্যক্তি শাহরাস্তিতে মাছের ঘের নিয়ে এলাকাবাসী চিন্তিত অকালে চুলে পাক ধরেছে? বদলাও ইয়ূথ ফাউন্ডেশনের সম্পত্তি লুটপাট করে নিয়ে গেল মাদকসেবীরা হাজীগঞ্জ প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির বেতন গ্রেড নির্ধারন নিয়ে তুলকালাম হাজীগঞ্জে মাস ব্যাপী তাঁত বস্ত্র ও কুটির শিল্প মেলার উদ্বোধন হাজীগঞ্জে পুলিশের মাদকবিরোধী ব্লকরেইড মিয়ানমারকে রোহিঙ্গাদের ফেরত নিতে হবে: প্রধানমন্ত্রী কচুয়ায় যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটি গঠন, দেখুন কে কোন পদ পেলো চাঁদপুরে মায়ের পূর্বেই কিভাবে ছেলের জন্ম হলো? জানলে অবাক হবেন বলাখালে অহরহ যেসকল বৈধ ঘটনা ঘটছে ,জানলে চমকে যাবেন মুজিববর্ষ উদযাপনে চাঁদপুর জেলা পরিষদ যেসকল প্রকল্প গ্রহণ করেছে.. ফরিদগঞ্জে বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধকে জানো শীর্ষক অনুষ্ঠান

শনিবার   ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আশ্বিন ৫ ১৪২৬   ২১ মুহররম ১৪৪১

দৈনিক চাঁদপুর
সর্বশেষ:
একবছরে পাঁচগুণ মুনাফা বেড়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের আমাজন বাঁচাতে লিওনার্দোর ৫০ মিলিয়ন ডলারের অনুদান রাজধানীতে চার জঙ্গি আটক ১৬২৬৩ ডায়াল করলেই মেসেজে প্রেসক্রিপশন পাঠাচ্ছেন ডাক্তার জোরশোরে চলছে রূপপুর পারমাণবিক প্রকল্পের কাজ
১৯০

মির্জা ফখরুল কোন দেশের হয়ে যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন?

প্রকাশিত: ২৩ ডিসেম্বর ২০১৮  

একদাশ জাতীয় সংসদ উপলক্ষে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের ভিডিও বার্তার জবাব দিয়েছেন সুচিন্তা ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ এ আরাফাত। 
 

মির্জা ফখরুল তার ভিডিওতে নিজেকে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে উপস্থাপন করে তরুণ ভোটারদের উদ্দেশে যেসব বক্তব্য দিয়েছেন সেই বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে পাল্টা ছুঁড়ে দিয়েছেন আরাফাত রহমান।

গণমাধ্যমে আরাফাত রহমানের প্রকাশিত বক্তব্যে বলা হয়েছে, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর কোন দেশের হয়ে যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন? সেই যুদ্ধে কারা তার সঙ্গী ছিল? ১৯৭১ এবং ২০১৮ সালে তার সেই যুদ্ধ কি একই যুদ্ধ, এবং সেই একই জামায়াত, যুদ্ধাপরাধী এবং রাজাকার কি তার উভয় যুদ্ধের সঙ্গী? 

১৯৭২-৭৫ আমলে আওয়ামী লীগ সরকার যুদ্ধাপরাধের বিচার শুরু করেছিল এবং জামায়াতকে নিষিদ্ধ করেছিল। মির্জা ফখরুলের দল যুদ্ধাপরাধের বিচার বন্ধ করে দিয়ে রাজাকারদের পুনর্বাসন করেছিল বাংলাদেশে। শুধু তাই নয়, দীর্ঘ ৩৭ বছর পর আওয়ামী লীগ যখন আবারও ২০০৯ সালে যুদ্ধাপরাধের বিচার শুরু করলো, মির্জা ফখরুলের দল তখন সমস্ত শক্তি দিয়ে এই বিচার প্রক্রিয়াকে বাধাগ্রস্ত করার চেষ্টা করেছে।

৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনেও মির্জা ফখরুলের দল রাজাকার জামায়াতকে তাদের ধানের শীষ প্রতীক দিয়ে নির্বাচনে নিয়ে এসেছে। মুক্তিযুদ্ধবিরোধী রাজাকারদের সঙ্গে নিয়ে মির্জা ফখরুল কোন যুদ্ধের ডাক দিচ্ছেন? মির্জা ফখরুলের নেতা তারেক রহমানের দৃষ্টিতে জামায়াত-বিএনপি একই মায়ের পেটের দুই ভাই।
মির্জা ফখরুল কি ভেবেছেন নতুন প্রজন্ম কিছুই বোঝে না? তাদের যা কিছু বলে বোকা বানানো যায়? আসলে তিনি নিজেই বোকার স্বর্গে বাস করছেন।

আমরাও মনে করি ২০১৮ এসেও ১৯৭১এর মুক্তিযুদ্ধ এখনও শেষ হয়নি। শেষ হয়নি কারণ মির্জা ফখরুলের দলই এই যুদ্ধ শেষ হয়েও শেষ হতে দেননি। ১৯৭৫ এর পরে মুক্তিযুদ্ধবিরোধীদের বাংলাদেশে পুনর্বাসন করে তারাই এই যুদ্ধকে শেষ হতে দেননি। 
 

তবে যে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে মুক্তিযুদ্ধে আমরা বিজয় ছিনিয়ে এনেছিলাম, সেই আওয়ামী লীগের নেতৃত্বেই আমরা পূর্ণাঙ্গ বিজয় লাভ করবো। এবং এ যুদ্ধে তরুণ প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্বদানকারী দল আওয়ামী লীগকেই সমর্থন দেবে। 

নতুন প্রজন্ম ভোট দেবে, অবশ্যই ভোট দেবে এবং বুঝে শুনেই ভোট দেবে। ভোটের মাধ্যমে নতুন প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধের বিপক্ষ শক্তি এবং তার পৃষ্ঠপোষকদের প্রত্যাখ্যান করবে। প্রত্যাখ্যান করবে মির্জা ফখরুলের মতো মিথ্যাবাদী, প্রতারক এবং ভণ্ড রাজনীতিবিদদের। তখনই প্রতিষ্ঠিত হবে সত্যিকার গণতন্ত্র। জয় বাংলা।

দৈনিক চাঁদপুর
দৈনিক চাঁদপুর