ব্রেকিং:
উৎপাদন বৃদ্ধিতে একযোগে কাজ করার অঙ্গীকার করোনাকালে চূড়ান্ত এমপিওভুক্তির সুখবর পেল ১৬৩৩ স্কুল-কলেজ করোনা মোকাবেলায় বঙ্গবন্ধুর স্বাস্থ্যসেবা দর্শন বৈশ্বিক ক্রয়াদেশ পূরণে সক্ষম বাংলাদেশ ॥ শেখ হাসিনা মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছে মানুষ, দৃষ্টান্ত স্থাপন করে চলেছে করোনা পরীক্ষা হবে চার বেসরকারি হাসপাতালে ২০ হাজারের বেশি আইসোলেশন শয্যা প্রস্তুত রয়েছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী করোনা আক্রান্তের শরীরের অক্সিজেনের পরিমাণ ঘরেই পরীক্ষার উপায় দেশে ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড সংখ্যক আক্রান্ত, আরো ৮ মৃত্যু করোনা মোকাবিলায় বাংলাদেশের প্রশংসা করলেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী দেশে ৫৪৯ নতুন করোনা রোগী শনাক্ত, আরো ৩ মৃত্যু হাসপাতাল থেকে পালানো করোনা রোগীকে বাগান থেকে উদ্ধার চাঁদপুরে ২০০০ পরিবারের মাঝে ইফতার সামগ্রী বিতরণ চীনের ৪ বিশেষজ্ঞ ঢাকায় আসছেন ভেন্টিলেটর-সিসিইউ স্থাপনে ১৪শ` কোটি টাকার জরুরি প্রকল্প নির্দেশনা না মানায় গণস্বাস্থ্যের কিট গ্রহণ করিনি বাংলাদেশে ১৯ মের মধ্যে করোনা বিদায় নেবে ৯৭ শতাংশ চাকরির বয়স শিথিলের বিষয় ভাবছে সরকার মানসম্মত কোন ধাপ অতিক্রম করেনি গণস্বাস্থ্যের কিট প্রধানমন্ত্রীর অনুদানের টাকা পেলেন ১৫ চরমপন্থী
  • শুক্রবার   ২৯ মে ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৫ ১৪২৭

  • || ০৫ শাওয়াল ১৪৪১

সর্বশেষ:
একবছরে পাঁচগুণ মুনাফা বেড়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের আমাজন বাঁচাতে লিওনার্দোর ৫০ মিলিয়ন ডলারের অনুদান ১৬২৬৩ ডায়াল করলেই মেসেজে প্রেসক্রিপশন পাঠাচ্ছেন ডাক্তার জোরশোরে চলছে রূপপুর পারমাণবিক প্রকল্পের কাজ
১১৭

সন্তানের ইন্টারনেট আসক্ততা দূর করার কৌশল

দৈনিক চাঁদপুর

প্রকাশিত: ৭ নভেম্বর ২০১৯  

ইন্টারনেটের কল্যাণে দুনিয়া এখন সবারই হাতের মুঠোয়। অবসর কাটাতে, যেকোনো প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে, প্রিয়জনের সঙ্গে আড্ডা দিতে ইন্টারনেট একটি অন্যতম প্রধান মাধ্যম। এরই একটা মারাত্মক কুফল হিসেবে দেখা দিয়েছে শিশুদের ইন্টারনেট আসক্তি। আজকাল প্রায়ই একটা শব্দ শোনা যায় ‘স্ক্রিনেজার’। 
সেইসব শিশুদের ক্ষেত্রে শব্দটি ব্যবহার করা হয়, যারা ইন্টারনেটের প্রতি আসক্ত। দিনের অনেকটা সময় কাটায় ইন্টারনেট নিয়ে। এ কথা অনস্বীকার্য যে তথ্যপ্রযুক্তির এই যুগে ইন্টারনেট সম্পর্কে অজ্ঞ থাকলে চলে না। তবে শিশুর অবসরযাপন বা খেলাধুলার একমাত্র সঙ্গী যদি হয়ে ওঠে ইন্টারনেট, তাহলে তা খুব চিন্তার বিষয় হয়ে দাঁড়ায়। তাই রাশ টানতে হবে সঠিক সময়েই। কীভাবে কাটাবেন এই মোহ, চলুন জেনে নেয়া যাক-

১। শিশুর ইন্টারনেট আসক্তি কাটাতে বাবা-মায়ের ভূমিকা সবচেয়ে বেশি। আমরা যদি সারাক্ষণ মোবাইল ফোনে চ্যাটিং করি বা কম্পিউটারে বসে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যস্ত থাকি, তাহলে সন্তানের মনে হবে, এটাই স্বাভাবিক। সন্তানের এই নেশা কাটানোর জন্য তাই নিজেও যতটা সম্ভব ইন্টারনেটের ব্যবহার কমান।

২। অফিস থেকে বাসায় ফিরে সন্তানের সঙ্গে সময় কাটান, গল্প করুন। আর এই সময়টাতে আপনারাও ইন্টারনেট থেকে দূরে থাকুন। আপনার এই স্পর্শ, আদরগুলো ওর জন্য খুব জরুরি। এতে বাবা-মায়ের সঙ্গে সন্তানের সুন্দর সম্পর্ক গড়ে উঠবে।

৩। আপনি যদি সন্তানকে পড়তে বসিয়ে নিজে মোবাইলে গেম খেলেন কিংবা সোশ্যাল সাইটের কৌতুক পড়ে হাসেন আর আশা করেন সন্তান মন দিয়ে পড়াশোনা করবে, সেটা কিন্তু সম্ভব নয়। তাই সন্তান যখন পড়তে বসবে, তখন আপনি ইন্টারনেটে ব্যস্ত না থেকে বই বা ম্যাগাজিন পড়ুন।

৪। অনেকেই ছোট শিশুর কান্না থামাতে কিংবা খাওয়ানোর সময় মোবাইল ফোন দেখান। শিশুও তখন সবকিছু ভুলে বাধ্য ছেলে বা মেয়ে হয়ে যায়। পথটা খুব সহজ, কিন্তু সমস্যার বীজ রোপণ হয় এখানেই। শিশুকে যতটা সম্ভব মোবাইল থেকে দূরে রাখুন। 


 
৫। সন্তান একটু বড় হলে ওকে বোঝান যে মোবাইল কাজের জিনিস; খেলার বস্তু নয়।

৬। সন্তান কতক্ষণ মোবাইলে গেম খেলবে বা ইন্টারনেট ব্যবহার করবে, তার একটা নির্দিষ্ট সময়সীমা বেঁধে দিন।

৭। সন্তান ইন্টারনেটে কী ধরনের গেম খেলছে, কী ভিডিও দেখছে কিংবা কী সার্চ করছে, তা খেয়াল রাখুন।

৮। সন্তান একটু বড় হলে ওকে ইন্টারনেটের খারাপ দিকগুলো সম্পর্কে সতর্ক করে দিন।

৯। আপনার ফোনে সব সময় পাসওয়ার্ড দিয়ে রাখুন, যাতে সন্তান যখন তখন আপনার মোবাইল ফোন নিয়ে বসে পড়তে না পারে।

১০। শিশুকে ইন্টারনেট থেকে দূরে রাখতে ওকে নিয়ে বাইরে ঘুরতে বের হন। কোনো খেলাধুলার কোর্সে ওকে ভর্তি করে দেন। এ ছাড়া নাচ, গান, ছবি আঁকতে উৎসাহ দিন। তবে এটা ঠিক, ইন্টারনেটের সবই কিন্তু খারাপ নয়। বরং সঠিকভাবে কাজে লাগাতে পারলে এটা ছোটদের শিক্ষার ক্ষেত্রে একটি ভালো মাধ্যম হয়ে উঠতে পারে।

দৈনিক চাঁদপুর
দৈনিক চাঁদপুর
লাইফস্টাইল বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর