ব্রেকিং:
চাঁদপুরে ওছমানিয়া মাদ্রাসার যেসকল উন্নয়ন কাজ হচ্ছে হাজীগঞ্জে সিনিয়র সচিব ড. শাহ কামালের বাবার দাফন সম্পন্ন যত্রতত্র বর্জ্যের কারণে এ কি হলো ফরিদগঞ্জের চাঁদপুরে পুলিশের ১৪শ` সদস্যের সাথে আর কারা যোগদান করলো শুকরের খামারের পাশে মর্গ! ‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযান সারাদেশেই চলবে’ প্রমাণ পেলে সবার বিরুদ্ধেই ব্যবস্থা: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হাজীগঞ্জ উপজেলার ইছাপুরা গ্রামে নেমেছে শোকের ছায়া ব্যতিক্রম ওসি! জানুন বিস্তারিত মতলবে খাদেরগাঁও বায়তুল ফালাহ জামে মসজিদের উদ্বোধন নারীদের যেভাবে দক্ষ হিসেবে গড়ে তুলতে হবে হাইমচরে উত্তর ইউনিয়ন কৃষকদলের সম্মেলন অনুষ্ঠিত চাঁদপুর মাছঘাটে এতো ইলিশ কোথা থেকে এলো আজ কমিউনিটি পুলিশিং সমন্বয় কমিটির সাথে পুলিশ সুপারের মতবিনিময় বাঘড়ায় জমজমাট এই ধরণের ব্যবসা, জানুন বিস্তারিত চাঁদপুরে যেভাবে রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে সরকার বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ উদযাপনে ফরিদগঞ্জে `বঙ্গবন্ধু উৎসব` শুরু কচুয়ায় আদালতের মাধ্যমে যে অমূল্য সম্পদ ফিরে পেলো অসহায় পারুল বেগম চতুরঙ্গ ইলিশ উৎসবের সার্বিক প্রস্তুতি সভা চাঁদপুরে ৪২৮ কোটি টাকার যেসকল ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন

রোববার   ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আশ্বিন ৭ ১৪২৬   ২২ মুহররম ১৪৪১

দৈনিক চাঁদপুর
সর্বশেষ:
একবছরে পাঁচগুণ মুনাফা বেড়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের আমাজন বাঁচাতে লিওনার্দোর ৫০ মিলিয়ন ডলারের অনুদান রাজধানীতে চার জঙ্গি আটক ১৬২৬৩ ডায়াল করলেই মেসেজে প্রেসক্রিপশন পাঠাচ্ছেন ডাক্তার জোরশোরে চলছে রূপপুর পারমাণবিক প্রকল্পের কাজ
৬৪০

৪ বছরেও থামেনি মিনুর মায়ের কান্না

প্রকাশিত: ২৯ আগস্ট ২০১৯  

বিদ্যালয়ে ও শ্রেণিকক্ষে ইভটিজিংয়ের শিকার হয়ে আত্মহননকারী, শাহরাস্তি উপজেলার ফরিদ উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেণির ছাত্রী শারমিন আক্তার মিনুর মায়ের কান্না আজও থামেনি। ঘটনার ৪ বছর অতিবাহিত হলেও জাল জালিয়াতির মাধ্যমে আইনী চোখ ফাঁকি দিয়ে বহাল তবিয়তে রয়েছে মামলার মূল আসামী মমিন হোসেন তারেকসহ অন্যরা। পুলিশের পক্ষপাতদুষ্ট অভিযোগ গঠনের কারণে দফায় দফায় তদন্ত কার্যক্রম পরিবর্তন ও আসামী পক্ষের হুমকি-ধমকির ফলে বোন হারানোর বিচার চেয়ে ভীত সন্ত্রন্ত জীবন কাটাতে হচ্ছে এমন অভিযোগ বাদীর পরিবারের।

জানা যায়, ২০১৫ সালের ২০ আগস্ট শাহরাস্তি উপজেলার আয়নাতলী ফরিদ উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেণির ছাত্রী শারমিন আক্তার মিনু শ্রেণিকক্ষে ও বিরতির সময় ক্যাম্পাসে সহপাঠীর দ্বারা উত্ত্যক্তের শিকার এবং উত্ত্যক্তকারীর পরিবারের সদস্যদের দ্বারা নাজেহাল হয়ে ক্ষোভে আত্মহত্যা করে পৃথিবী থেকে বিদায় নেয়।

ওই ঘটনার ৪ বছর অতিবাহিত হলেও এখনো বিচার না হওয়ায় হতাশ মিনুর মা শাহিদা বেগম। তবে তিনি বিচার পাওয়ার আশায় রয়েছেন।

সরেজমিনে হাঁড়িয়া গ্রামে মিনুর বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, সুনসান নীরবতার মাঝেই চলছে চতুর্থ মৃত্যুবার্ষিকীর আয়োজন। প্রিয়জন হারানো স্বজনরা ৪ বছরেও ভুলতে পারেনি সেদিনের দুঃসহ স্মৃতি। সাংবাদিকদের দেখেই দীর্ঘদিনের চাপা কান্না বাঁধ ভেঙ্গে উপচে পড়ে। পাশে উপস্থিত এলাকার ২/১ জন আড়ালে গিয়ে অশ্রু সংবরণ করেছে। কথা হয় মিনুর মায়ের সাথে। সংবাদকর্মীদের দেখেই তিনি কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। কান্না জড়িত কণ্ঠে বলেন, আমি রাস্তায় বের হই না, স্কুল ড্রেস পরা মেয়েদের দেখলে আমার কলিজা ফেটে যায়। বিকেল হলেই মনে হয় দলবাঁধা মেয়েদের সারি হতে ছুটে এসে স্কুল ব্যাগ খাটে ছুঁড়ে মিনু আমায় ডাকছে 'মা, খেতে দাও'। সে আশায় আজো তার পথ চেয়ে আছি। আমি একটু বিচার চেয়েছি, তাও আজ এটা, কাল ওটা। দোষীদের শাস্তি দেখলে আমার মিনুর আত্মা শান্তি পাবে। যাদের কারণে আমার মেয়ে পৃথিবী ছেড়ে চলে গেলো আমি তাদের বিচারের আশায় রয়েছি।

মিনুর বড়ভাই প্রবাসী শাহজাহান সোহাগ মুঠোফোনে জানান, আমরা ৫ ভাইয়ের একমাত্র বোন মিনু। অনেক স্বপ্ন নিয়ে তাকে বিদ্যালয়ে পাঠিয়েছিলাম মানুষের মতো মানুষ বানাতে। সেই বিদ্যালয়ের শ্রেণিকক্ষ ও ক্যাম্পাসে নিষ্ঠুর পৃথিবীর মানুষরূপী কিছু অমানুষের অমানবিক আচরণের কারণে পৃথিবী ছাড়তে হয় তাকে। চার বছরেও মায়ের চোখের জল শুকায়নি। ন্যায্য বিচার পাওয়ার আশায় প্রতিটি প্রহর গুণছেন তিনি দীর্ঘশ্বাস নিয়ে। আর অপরাধীরা দিব্যি চোখের সামনে ঘুরাফেরা করছে। চার বছরে মামলা তুলে নিতে অনেক অনুরোধ, হুমকি ও প্রলোভন পেয়েছি। অথচ শূন্য বুকের হাহাকার মিটানোর জন্য এতোটুকু সান্ত্বনা দেবার মতো কাউকে পাইনি।

দৈনিক চাঁদপুর
দৈনিক চাঁদপুর
এই বিভাগের আরো খবর