ব্রেকিং:
দেশে করোনায় ৮২ পুলিশ সদস্যের মৃত্যু, আক্রান্ত ১৮ হাজার আয়কর দিতে হবে ৩০ তারিখের মধ্যে গ্রামীণ বিদ্যুৎ সুবিধা উন্নয়নে ২০০ মিলিয়ন ডলার ঋণ দেবে এডিবি দেশের নানা আয়োজনে ১৭-২৬ মার্চ যোগ দেবেন বিশ্ব নেতারা স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের ছবি ব্যবহার করে ফেসবুকে প্রতারণা উৎপাদন বৃদ্ধিতে একযোগে কাজ করার অঙ্গীকার করোনাকালে চূড়ান্ত এমপিওভুক্তির সুখবর পেল ১৬৩৩ স্কুল-কলেজ করোনা মোকাবেলায় বঙ্গবন্ধুর স্বাস্থ্যসেবা দর্শন বৈশ্বিক ক্রয়াদেশ পূরণে সক্ষম বাংলাদেশ ॥ শেখ হাসিনা মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছে মানুষ, দৃষ্টান্ত স্থাপন করে চলেছে করোনা পরীক্ষা হবে চার বেসরকারি হাসপাতালে ২০ হাজারের বেশি আইসোলেশন শয্যা প্রস্তুত রয়েছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী করোনা আক্রান্তের শরীরের অক্সিজেনের পরিমাণ ঘরেই পরীক্ষার উপায় দেশে ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড সংখ্যক আক্রান্ত, আরো ৮ মৃত্যু করোনা মোকাবিলায় বাংলাদেশের প্রশংসা করলেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী দেশে ৫৪৯ নতুন করোনা রোগী শনাক্ত, আরো ৩ মৃত্যু হাসপাতাল থেকে পালানো করোনা রোগীকে বাগান থেকে উদ্ধার চাঁদপুরে ২০০০ পরিবারের মাঝে ইফতার সামগ্রী বিতরণ চীনের ৪ বিশেষজ্ঞ ঢাকায় আসছেন ভেন্টিলেটর-সিসিইউ স্থাপনে ১৪শ` কোটি টাকার জরুরি প্রকল্প
  • শনিবার   ০৪ ডিসেম্বর ২০২১ ||

  • অগ্রাহায়ণ ২০ ১৪২৮

  • || ২৭ রবিউস সানি ১৪৪৩

সর্বশেষ:
একবছরে পাঁচগুণ মুনাফা বেড়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের আমাজন বাঁচাতে লিওনার্দোর ৫০ মিলিয়ন ডলারের অনুদান ১৬২৬৩ ডায়াল করলেই মেসেজে প্রেসক্রিপশন পাঠাচ্ছেন ডাক্তার জোরশোরে চলছে রূপপুর পারমাণবিক প্রকল্পের কাজ

পুরাণবাজারে খোলা থাকছে অধিকাংশ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান

দৈনিক চাঁদপুর

প্রকাশিত: ১৪ এপ্রিল ২০২০  

যে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে এবং জনসচেতনতা সৃষ্টিতে মানননীয় প্রধানমন্ত্রী থেকে শুরু করে মন্ত্রী, আমলা, সেনাবাহিনী, জেলা প্রশাসন, পুলিশ, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, সাংবাদিকসহ সকল মহল জোর প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে, ঠিক সে মুহূর্তে এখনো কিছু কিছু লোক বিষয়টি তেমনভাবে আমলেই নিচ্ছে না। এমনই পরিস্থিতি দেখা গেলো বাণিজ্যবন্দর নামে খ্যাত পুরাণবাজারে। পুরাণবাজারের বাতাসাপট্টি, ডালপট্টি, চালপট্টি, তামাকপট্টি, ট্রাংকপট্টি, আড়তপট্টিসহ সংযুক্ত সকল রাস্তার অবস্থা দেখে বোঝার উপায় ছিলো না যে পুরাণবাজারের এ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো কি লকডাউনভুক্ত না মুক্ত। মনে হয়েছে লকডাউনপূর্ব অবস্থার চেয়ে বর্তমানে ভিড় অনেকটাই বেশি।

 


সরকারের ঘোষিত নীতি অনুযায়ী খাদ্য দোকান আর ঔষধের দোকান ব্যতীত সকল দোকানপাট বন্ধ থাকার ঘোষণা থাকলেও খোলা রয়েছে জুতা, স্টেশনারী, জাল-সুতা, লোহা-লক্করের দোকানসহ সকল পণ্যের দোকানপাট। তারা দোকানের সামনের দিকের এক অংশ বন্ধ রেখে বাকি অংশ দিয়ে নির্দ্বিধায় পণ্য কেনা-বেচা করছে স্থানীয়সহ মফস্বলের ক্রেতাসাধারণের নিকট। অথচ করোনা ভাইরাসের ভয়াবহতার কথা চিন্তা করে চাঁদপুর জেলাবাসীর নিরাপত্তার কথা মাথায় রেখে গত ৯ এপ্রিল থেকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত চাঁদপুর জেলাকে লকডাউন ঘোষণা করা হয়। এ ঘোষণার সার কথা ছিলো এ জেলায় জনসাধারণের প্রবেশ ও প্রস্থান নিষিদ্ধ করা। এ ঘোষণার ফলে সড়ক ও নৌপথে অন্য কোনো জেলা হতে কেউ এ জেলায় প্রবেশ বা অন্য কোনো জেলায় প্রবেশ করতে পারবে না। জেলার অভ্যন্তরে আন্তঃউপজেলায় যাতায়তের ক্ষেত্রেও একই আদেশ বলবৎ থাকবে। সামাজিক নিরাপত্তার কথা মাথায় রেখে প্রয়োজনের বাইরে ঘর থেকে বের হওয়ার উপরও নিষেধাজ্ঞা প্রদান করা হয়। এমনকি নিত্যপ্রয়োজনীয় মুদিখানা আইটেম ও ঔষধের দোকান ছাড়া সকল প্রকার দোকানপাট বন্ধ রাখার উপরও গুরুত্বারোপ করা হয়। কিন্তু কে শুনে কার কথা। যে যখন-যেভাবে সুযোগ পাচ্ছে, সে সেভাবেই দোকানপাট খুলে বসে আছে। আর দূর থেকে দেখছে প্রশাসনের কোনো কর্তাব্যাক্তির আগমন ঘটে কি না। যদি হঠাৎ করে প্রশাসনের কোনো কর্তাব্যাক্তির আগমন ঘটে তাহলে বিদ্যুৎগতিতে অবৈধভাবে খোলা রাখা দোকানপাট চোখের পলকে বন্ধ হয়ে যায়। তেমন চিত্রই চোখে পড়েছে গতকাল দুপুর প্রায় সোয়া একটার দিকে।

 


গতকাল দুপুরে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ সামিউল ইসলামের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালত মোবাইল কোর্টের একটি গাড়ি ও সেনাবাহিনীর সদস্যদের বহনকারী ২টি গাড়ি পুরাণবাজারের মসজিদপট্টিতে ঢোকার সংবাদ পাওয়ার সাথে সাথে মুদিখানা আইটেমের পাইকারী দোকানগুলো ব্যতীত সকল দোকান বন্ধ হয়ে যায়। নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের পাইকারী বাজার হওয়ায় পুরাণবাজারের গুরুত্ব অপরিসীম। সেই বিবেচনার কথা মাথায় রেখে প্রশাসন এ বাজারের আমদানি-রপ্তানি স্বাভাবিক রাখতে পাইকারী ব্যাবসায়ীদের সহযোগিতা অব্যাহত রাখায় চাল, তেল, ডাল, চিনি, লবণ, আটা, ময়দা, পেঁয়াজ, রসুন ব্যবসায়ী ছাড়াও অন্যান্য ব্যবসায়ীরা তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান কম-বেশি খোলা রাখছে। ফলে পাইকারী বাজারটি ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। বাজারে সকল ধরনের ক্রেতাসাধারণের উপস্থিতিতে একদিকে যেমন সামাজিক নিরাপত্তা বিঘ্ন হচ্ছে অন্যদিকে উপেক্ষিত হচ্ছে লকডাউনের নির্দেশিকা। একই চিত্র দেখা যায় পুরাণবাজারের নতুন রাস্তার উপর বসা মাছ বাজার ও কাঁচা বাজারের ক্ষেত্রে। সকাল হলেই দেখা যায় এ বাজারে কেনাকাটা করতে ভিড় জমাচ্ছেন সকল বয়সী মানুষ। একজন আরেকজনের সাথে পাশাপাশি অবস্থান নিয়ে নিশ্চিন্তে বাজার-সদাই করছেন। বর্তমানে দেশে যে করোনা ভাইরাস রয়েছে বা প্রশাসন যে সাবধানতা অবলম্বনের জন্যে সতর্কতা জারি করেছে সেদিকে কারোই কোনো ভ্রূক্ষেপ নেই।

 


পুরাণবাজার পাইকারী বাজার হওয়ায় এ স্থানে চরাঞ্চল থেকে শুরু করে জেলার বিভিন্ন স্থানের মানুষদের অগমন হয়ে থাকে। আর এ আগন্তুকের মাঝে কে কতটা ভাইরাসমুক্ত বা যুক্ত তা বলা একেবারেই অসম্ভব। তাই সাবধানতা গ্রহণ করাই হবে এক্ষেত্রে করোনা থেকে বাঁচার একমাত্র উপায়। আর সাবধানতা গ্রহণে প্রশাসন আরো কঠিন হবে এমনটাই আশাবাদ ব্যক্ত করছেন পুরাণবাজারবাসী।

দৈনিক চাঁদপুর
দৈনিক চাঁদপুর